June 23, 2024, 4:15 am

সাংবাদিক আবশ্যক
সাতক্ষীরা প্রবাহে সংবাদ পাঠানোর ইমেইল: arahmansat@gmail.com
অভিনয় শিল্লী শাপলা ও জেলা পরিষদ সদস্য লাল্টু বেরসিক জনতার হাতে আটক

অভিনয় শিল্লী শাপলা ও জেলা পরিষদ সদস্য লাল্টু বেরসিক জনতার হাতে আটক

সাতক্ষীরার আলোচিত অভিনয় শিল্লী সোনিয়া পারভীন শাপলা (২৮) ও সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের সদস্য ওবায়দুর রহমান লাল্টুর (৫০) একান্তে  মুহূর্ত অতিবাহিত করার সময় বাঁধ সাধলো বেরসিক জনতা। রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) গভীর রাতে উপজেলার ধূলিহর ইউনিয়নের পুরাতন বাজার খোলার গ্রামীণ ব্যাংকের সামনে অভিনয় শিল্লী সোনিয়া পারভীন শাপলার বাড়িতে তাদেরকে একান্ত মূহুর্তে আটক করে স্থানীয়রা।

ন্যাক্কারজনক এ ঘটনার নায়ক সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ সদস্য ওবায়দুর রহমান লাল্টু সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বল্লী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ-সম্পাদক এবং এঘটনার আলোচিত নায়কা সোনিয়া পারভীন শাপলা সাতক্ষীরা জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। স্থানীয়রা জানান, বিভিন্ন সময় অভিনয় শিল্লী পরিচয়দারী শাপলা তার নিজের বসতবাড়িতে দেহব্যবসা করে আসছিলো। সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অপরিচিত পুরুষকে তার স্বামী পরিচয় করিয়ে রাত যাপন করতো। বছর বিশ আগে তার সাথে যশোরের নওয়াপাড়া এলাকার এক রিক্সা চালকের বিয়ে হয়। এদম্পত্তির এক কন্যা সন্তানও রয়েছে। তবে বিয়ের পরে বিভিন্ন মানুষের সাথে অবৈধ সম্পর্কের জের তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এর পরবর্তীতে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের এক নেতার সাথে বিবাহ বন্ধনে জড়ায় শাপলা। তবে শাপলার অন্য জায়গায় অবৈধ সম্পর্কের কারনে আওয়ামীলীগ নেতার সাথেও তার বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এর পরবর্তীতে সাতক্ষীরার এক সাংসদ সদস্যর ছত্রছায়ায় থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে নিজেকে জড়িয়ে নেয়। হন জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। রাজনৈতিক ভাবে তার আধিপত্য থাকাই তার এসমস্ত অপর্কমের প্রতিবাদ করতে সবাই ভয় পেতো বলে জানান তারা। এসময় তারা বলেন, ঘটনার দিন রাতে একই রুমে রাত যাপন কালে স্থানীয় বেরসিক জনতা তাদেরকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় একরুমে আটক করে। পরবর্তীতে মুখরোচক ঘটনাটি মুহূর্তের মধ্যে এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রশাসনকে অবগত করা হয়। এসময় সাতক্ষীরা সদর ফাঁড়ির এসআই রবী, ব্রহ্মরাজপুর পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আজিমের হাতে হাতে তাদেরকে তুলে দেওয়া হয়। নাম প্রকাশ্যে এক আওয়ামলীগের নেতা জানান, ইতিপূর্বে বছর দেড় আগে ঢাকার বাড্ডা এলাকায় ডিআইটি প্রজেক্ট (হাউজিক আবাসিক) এলাকাতে অন্তরঙ্গ অবস্থায় স্থানীয়দের কাছে ধরা পড়েছিলো শাপলা ও লাল্টু। তবে সেসময় রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় পার পেয়ে যায় তারা।

এবিষয়ে বল্লী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শেখ বোরহান উদ্দীন জানান, বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্যক্তিকে নিজের স্বামী পরিচয়ে তার সাথে রাত কাটান শাপলা। একএক রাতে একএক স্বামী পরিবর্তন করা নিয়ে বহুবছর ধরে স্থানীয়দের মাঝে কৌতূহল সৃষ্টি হয়। এবং সর্বশেষ বেরসিক জনতা তাদেরকে হাতেনাতে আটক করে। এসময় তিনি বলেন, ঘটনাটি স্থানীয় জনগণ আমাকে জানালে আমি সদর থানায় বিষয়টি অবহিত করি। তবে শাপলা ও লাল্টু নিজেদের বিবাহিত দাবি করলে তারা বিয়ের কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হন। তবে ১দিনের ভিতরে বিয়ের কাগজ দেখানোর শর্তে পুলিশের উপস্থিতিতে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। এসময় তিনি বলেন, কপোত, কপোতী ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দ হওয়ায় স্থানীয়দের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করবে বলে ভয়ভীতি দেখিয়ে চলেছেন। একারনে জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

এবিষয়ে ব্রহ্মরাজপুর ফাঁড়ির এএসআই আজিম হোসেন জানান, বিয়ের কাগজপত্র দেখানোর শর্তে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে এখনো পর্যন্ত বিয়ের কাগজপত্র দেখিয়েছে কিনা সেটা সম্পর্কে আমি অজ্ঞাত। উদ্ধর্তন কর্মকর্তারা বিষয়টি বলতে পারবেন।


Comments are closed.

ইমেইল: arahmansat@gmail.com
Design & Developed BY CodesHost Limited
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com