May 24, 2024, 4:18 pm

সাংবাদিক আবশ্যক
সাতক্ষীরা প্রবাহে সংবাদ পাঠানোর ইমেইল: arahmansat@gmail.com
শিরোনাম:
সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা অপহরণ মামলার মূল আসামী এক মাসেও গ্রেফতার হয়নি মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদীকে হুমকি দেবহাটার চারকুনীতে বরোপিট খননে সুফল পাওয়ায় কর্মকর্তাদের সংবর্ধনা গাজায় ইসরায়েলের ভয়াবহ হামলায় নিহত অন্তত ৫০ মোরগ চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে রুবিনাকে গালিগালাজ ও মারপিট এমপি আনার হত্যা : তিন আসামির ১০ দিনের রিমান্ড চেয়েছে ডিবি ঝিনাইদহে প্রবাসীর স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা, আটক ২ মশিউর রহমান বাবুর গণসংযোগ সাতক্ষীরায় মোটরযানের উপর মোবাইল কোর্ট আশাশুনি ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে স্বেচ্ছাসেবক প্রশিক্ষণ উদ্বোধন উন্নয়ন কার্যক্রমে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তি বিষয়ক মতবিনিময় সভা
কলারোয়ায় তহশীলদারের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে খাস জমিতে পাকা ঘর তৈরীতে সহয়তার অভিযোগ

কলারোয়ায় তহশীলদারের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে খাস জমিতে পাকা ঘর তৈরীতে সহয়তার অভিযোগ

Tunto: কলারোয়ায় এক তহশীলদারের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে খাস জমিতে পাকা ইটের গাঁথুনি দিয়ে ঘর তৈরীতে সহয়তার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, কলারোয়া উপজেলার ৯৩ নং জালালাবাদ মৌজার সরকারি খাস খতিয়ানভূক্ত ১০৩৭ নং দাগে জালালাবাদ গ্রামের মালায়েশিয়া প্রবাসী মিজানুর রহমান মোড়লের ছেলে শিবির ক্যাডার ইমরান হোসেন প্রায় মাস খানেক আগে জালালাবাদ বাজারে লোহার রড, ইটের খোয়া ও বালির মিশ্রনে কংক্রিট দিয়ে পিলার তৈরী করে পাঁকা দোকান ঘর তৈরী শুরু করে। বাজারের মধ্যে সরকারি জমি জবর দখল করে দোকান ঘর তৈরিতে এলাকার সচেতন মানুষরা ফুঁসে ওঠে। মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে গেলে জালালাবাদ গ্রামবাসীর অনেকে বলেন, বিষয়টি তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও জেলা প্রসাশককে মোবাইল ফোনে অবহতি করেছিলেন। পরে গত ১৯ শে জুন উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো এবং জালালাবাদ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশীলদার আমিরুল ইসলাম স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতে ওই জমি সরেজমিন মাপ জরিপ করে সীমানা নির্ধারণ করেন। তাতে দেখা যায়, ইমরান হোসেন সরকারের খাসএক শতক জমি জবর দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ শুরু করছে। তখন কানুনগো সকলের সামনে ইমরানকে বলেন,নির্মাণাধীন দোকান ঘরের অর্ধেক অংশ সরকারের খাস জমিতে তৈরী হচ্ছে। সরকারের জমিতে দোকান ঘর তৈরী করা যাবেনা। তাকে সরকারের জমি অবমুক্ত করার জন্যও বলেন তিনি। কিন্তু গত তিন দিন আগে পুনরায় উক্ত ইমরান হোসেন সরকারি ওই জমিতে কংক্রিটের কাজ শুরু করেছে। জালালাবাদ ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে মাত্র ২০ গজ দুরে খাস জমিতে ওই পাঁকা কাজ চলতে থাকায় তহশীলদারের ভূমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে জানান, জালালাবাদ ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম এক লক্ষ চল্লিশ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে সরকারের জমিতে কংক্রিট দিয়ে পাঁকা দোকান ঘর তৈরীতে সহয়তা করছেন। এবিষয় উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো’র সাথে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে জালালাবাদ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশীলদার আমিরুল ইসলামের ব্যবহৃত ০১৭২০-৫৪৮৯০৮ মুঠোফোনে তাঁর বক্তব্য জানার জন্য ফোন করলে তাঁর ফোনে রিং হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।


Comments are closed.

ইমেইল: arahmansat@gmail.com
Design & Developed BY CodesHost Limited
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com