March 1, 2024, 10:05 pm

সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান আতাউর: আমি পদ্মপুকুর ইউপিতে শান্তি শৃংখলা রক্ষায় কাজ করছি

সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান আতাউর: আমি পদ্মপুকুর ইউপিতে শান্তি শৃংখলা রক্ষায় কাজ করছি

রাজু স্টাফ রিপোর্টার:আমি ২০১৭-১৮ এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সাতক্ষীরা জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। একই সাথে আমি খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে ২০১৭ সালে মালয়েশিয়া ও ভারত সফরে সুযোগ পেয়েছিলাম। আমার ইউনিয়নের বেশীরভাগ মানুষ আমার কাজে সন্তুষ্ট হয়ে আমার সাথেই রয়েছেন। অথচ আমাকে ভূমিদস্যু হিসেবে আখ্যায়িত করে আমার অর্জিত সুনাম নষ্ট করার চেষ্টা করছে একটি মহল। আমি এর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে একথা বলেন শ্যামনগরের পদ্মপুকুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এসএম আতাউর রহমান। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলাম, স্বপন মৃধা, আবুল কাশেম, মো.আহসানউল্লাহ, আব্দুল গফুর ও হেদায়েতুল ইসলাম ছাড়াও যুবলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম, কৃষকলীগ নেতা তপন কুমার মন্ডল, আওয়ামী লীগ নেতা শওকত হোসেন গাজী ও মোঃ ওয়ালিউল্লাহ এবং যুবলীগের সাজিব বিল্লাহ।সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, পদ্মপুকুর ইউনিয়নের হিন্দু অধ্যুষিত একটি গ্রামের নাম ঝাঁপা। এখানে শতকরা ৯৫ ভাগ মানুষ হিন্দু ধর্মাবলম্বী। ২০০৯ সাল থেকে কয়েকটি মুসলিম পরিবার এখানে বসবাস করে। তাদের মধ্যে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি রয়েছে। তিনি উল্লেখ করেন এই গ্রামের জনৈক শহিদুল ইসলাম, হযরত আলী, আবু ঈসা ও রফিকুল ইসলাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে ঘর তৈরী করে বসবাস করছে। তাদের বিরুদ্ধে তপন মেম্বার সহ অনেকের মৎস্য ঘেরে মাছ চুরির অভিযোগ ওঠে। এ ব্যাপারে থানায় একটি জিডিও করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, গত ৫ জুলাই সাবেক ইউপি সদস্য তপন কুমার মন্ডলের ঘেরে মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় শহিদুল, ঈসা, নাইম ও শামিম সহ মহিলারা ঘেরের ম্যানেজার ও তপন মেম্বরের স্ত্রী সহ কয়েকজনকে মারধর করে। এ নিয়ে শ্যামনগর থানায় একটি মামলাও হয়।সংবাদ সম্মেলনে ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, শান্তি বজায় রাখার স্বার্থে আমি সেখানে গ্রাম পুলিশ নিয়োগ করি। মারপিট করার কারনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে শ্যামনগর থানার কয়েকজন পুলিশ সদস্য সেখানে সার্বক্ষনিক পাহারায় থাকেন। আমি চেয়ারম্যান হিসাবে নিরপেক্ষ থেকে এলাকায় শান্তি বজায় রাখার চেষ্টা করছি। অথচ একটি কুচক্রী মহল গত ২২ জুলাই আমাকে এবং যুবলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলামকে জড়িয়ে তাদের বাড়িঘর ভাঙা ও মৎস্য ঘের দখলের মিথ্যা গল্প তৈরী করে সংবাদ সম্মেলন করে আমাকে ভূমিদস্যু বানিয়েছে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রকৃতপক্ষে কাউকে উচ্ছেদ করা নয়, শান্তি রক্ষার স্বার্থে আমি আমার পরিষদের লোকজন এবং দলীয় লোকজন একযোগে কাজ করছি। তিনি প্রতিপক্ষের লোকজনের অপপ্রচারে কান না দেওয়ার অনুরোধ জানান।


Comments are closed.

© সাতক্ষীরা প্রবাহ
Design & Developed BY CodesHost Limited